• সোমবার   ০১ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৭ ১৪২৭

  • || ০৯ শাওয়াল ১৪৪১

আজকের নাটোর
৫৫৩

নাটোরে উপসর্গ ছাড়াই করোনায় আক্রান্ত হচ্ছে অনেকে

আজকের নাটোর

প্রকাশিত: ১২ মে ২০২০  

নাটোরে উপসর্গ ছাড়াই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা ঘটছে। এই তালিকা থেকে বাদ যাচ্ছেন না চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মীরাও। বিষয়টি ভাবিয়ে তুলেছে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের। 

তাঁদের মতে, বিষয়টি খুবই বিপজ্জনক। কারণ একজন করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তি, যিনি জানেনই না তিনি করোনায় আক্রান্ত, অথচ তিনি ঘুরছেন-ফিরছেন এবং সামাজিকভাবে মেলামেশার মাধ্যমে তাঁর এই রোগ অন্যদের মধ্যে ছড়িয়ে দিচ্ছেন। 

সুতরাং করোনার বেশি বেশি পরীক্ষা এবং ঘরে থাকার কোনো বিকল্প নেই। নইলে এটি ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়তে পারে। তবে আশার কথা হলো, নাটোরে যারা করোনায় আক্রান্ত হয়েছিল তাদের প্রায় সবাই সুস্থ হওয়ার পথে।

স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা যায়, সিংড়ায় নুর উদ্দিন নামে এক ব্যক্তির করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু হয়। স্বাস্থ্য বিভাগ এ সময় তিনিসহ তাঁর সংস্পর্শে যেসব চিকিৎসক, নার্স ও টেকনিশিয়ান গিয়েছিলেন, তাঁদের প্রত্যেকের নমুনা সংগ্রহ করে পাঠায়। পরে নুর উদ্দিনসহ হাসপাতালে কর্মরত একজন টেকনিশিয়ান ও নার্সের করোনা পজিটিভ ধরা পড়ে। 

এরপর সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে নমুনা পরীক্ষা করে আরো তিনজন করোনা পজিটিভ হিসেবে চিহ্নিত হয়। কিন্তু পজিটিভ হিসেবে চিহ্নিত হওয়ার আগে তাদের কোনো উপসর্গ ছিল না।

অন্যদিকে ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ থেকে আসা ব্যক্তিদের সন্দেহজনক কারণে পরীক্ষা করানো হয়। তাদেরও অনেকের কোনো উপসর্গ ছিল না। কিন্তু তারাও করোনা পজিটিভ হিসেবে চিহ্নিত হয়। বিষয়টি স্বাস্থ্য বিভাগকে ভাবিয়ে তুলেছে। তারা মনে করছে, এভাবে সামাজিকভাবে মেলামেশার মাধ্যমে রোগটি দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে পারে।

এ বিষয়ে নাটোরের সিভিল সার্জন ডা. কাজী মিজানুর রহমান বলেন, ‘যারা করোনা উপসর্গ নিয়ে আক্রান্ত হচ্ছে তাদের চিহ্নিত করা আমাদের জন্য সহজ। কিন্তু যাদের উপসর্গ নেই কিন্তু করোনাভাইরাসের বাহক, তারা আমাদের জন্য বিপজ্জনক। এ কারণে বেশি বেশি পরীক্ষার বিকল্প নেই। 

কিন্তু আমরা যে টেস্টগুলো পাঠাচ্ছি সেগুলোর ফলাফল পেতেও দেরি হচ্ছে। এ কারণে বেশি বেশি পরীক্ষা করানো যাচ্ছে না।’ তিনি জানান, এ পর্যন্ত নাটোরে ১২ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। তবে তাদের অবস্থা ভালো।

নাটোরের মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ও করোনা চিকিৎসকদলের প্রধান ডা. এ এইচ এম আনিসুজ্জামান বলেন, ‘নাটোরের করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের তেমন কোনো উপসর্গ নেই। আমরা তাদের সর্দি-কাশির চিকিৎসার পাশাপাশি পুষ্টিকর খাবার খেতে বলছি, যাতে তাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। তা ছাড়া তাদের আইসোলেশন বা ভেন্টিলেশনের প্রয়োজন না হওয়ায় বাড়িতেই চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।’

ডা. এ এইচ এম আনিসুজ্জামান বলেন, ‘আমরা আশাবাদী যে তাদের পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ আসবে।’ তিনি বলেন, ‘আমাদের জন্য বিপজ্জনক হলো উপসর্গ ছাড়া করোনায় আক্রান্ত হওয়া। অনেক সময় করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তির অ্যান্টিবডি প্রবল থাকলে উপসর্গ প্রকাশ পেতে দেরি হয়। 

অথচ তিনি সরবে-নীরবে জনগণের সঙ্গে মিশে, সামাজিকভাবে চলাচল করে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস ছড়াতে থাকেন। তাই আমরা বলতে পারি না কে করোনায় আক্রান্ত আর কে আক্রান্ত নয়। এ কারণে আমরা মানুষকে ঘরে থাকার পাশাপাশি সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার আহ্বান জানাচ্ছি।’

আজকের নাটোর
আজকের নাটোর
নাটোর বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর