শনিবার   ১৮ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ৫ ১৪২৬   ২২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

আজকের নাটোর
৯১৫

অল্প বয়সে বিয়ে, অত:পর কী?

প্রকাশিত: ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮  

‘কেন বিয়ে করছ না’,‘কবে বিয়ে করবে’,‘বয়স বেড়ে যাচ্ছে’, ‘কাউকে পছন্দ কর কি’  ইত্যাদি বিরক্তিকর কথা শোনার হাত থেকে মুক্তি পেতে তারকারাও অল্প বয়সে বিয়ে করে ফেলেন? যেমনটা করেছিলেন শাহরুখ খান। মাত্র ২৬ বছর বয়সে ভালোবেসে ঘর বেঁধেছিলেন শাহরুখ খান। সংসারের বয়স ২৭ বছর। এই দীর্ঘ ক্যারিয়ারে কখনোই কোন নায়িকাকে ঘিরে স্ক্যান্ডাল শোনা যায়নি শাহরুখের। এই সুখী দম্পত্তিকে দেখে হিংসে হতে পারে অনেকেরই। অন্যদিকে মাত্র ২৩ বছর বয়সে টম ক্রুজকে বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন নিকোল কিডম্যান। ১৯৯০ সালে মুক্তি পাওয়া ‘ডেজ অব থান্ডার’ সিনেমার সেটে নিকোল ও টমের পরিচয় হয়। ওই বছরই তারা বিয়ে করেন। ২০০১ সালে আবার তাদের ছাড়াছাড়িও হয়।

আমাদের মিডিয়াতেও এমন উদাহরণ কম নয়। আমাদের মিডিয়ায় দীর্ঘদিন ধরে যে রেওয়াজ চলে আসছে, বিয়ে করে কাউকে জানানো যাবে না। তাতে নাকি নায়ক- নায়িকার ক্যারিয়ার পরে যায়। আরও কত কি! কিন্তু সেসব ফর্মূলাকে অনেকেই তোয়াক্কা করেননি। সংসারটা সাজিয়ে নিয়েছেন অল্প বয়সেই। এর মধ্যে বেশিরভাগই আবার নিজের প্রেমিক- প্রেমিকাকেই করেছেন জীবনসঙ্গী। এটা একটা প্রাপ্তিও বলা যায়। তবে কাঁচা হাতে পাকা ঘর কি সুখের হয়? তাহসানের যখন ২৫ বছর বয়স, তখন ২৩ বছরের মিথিলাকে বিয়ে করেছিলেন। তবে একযুগের বেশি স্থায়ী হয়নি সে সংসার। কেউ কল্পনাও করতে পারেননি এমন রোমান্টিক জুটির বিচ্ছেদ হবে। ঠিক কি কারণে বিচ্ছেদ তার অবশ্য হদিস পাওয়া যায়নি। কখনোই মুখ খুলেননি দুজনে।  

বিয়ের পিড়িতে বসতে যাচ্ছেন তরুন নায়ক সিয়াম। মাত্র ৬ বছরের শোবিজ ক্যারিয়ারে হালের ক্রেজ বনে গেলেন সিয়াম। এরই মধ্যে বিয়ে। বন্ধুর বোন অবন্তীর সঙ্গে নয় বছরের পরিচয় চিত্রনায়ক সিয়ামের। আর সাত বছর তাঁদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক। এবার এই সম্পর্ক স্থায়ী রূপ পেতে যাচ্ছে। শাম্মা রুশাফি অবন্তী অবশ্য মিডিয়ার কেউ নন। নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে হিউম্যান রিসোর্স বিষয়ে স্নাতক শেষ করেছেন অবন্তী। এখন একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে ইন্টার্নি করছেন। জুটি হিসেবে সিয়াম- পূজাকে অনেকেই গ্রহণ করেছিলেন। এই বিয়ে ক্যারিয়ারে কোন প্রভাব ফেলবে না বলে মনে করেন সিয়াম।

গত বছর তৌসিফসহ আরও অনেকেই বিয়ের পিড়িতে বসেছেন। বয়স যখন ত্রিশ হয়নি, তখনি বিয়ে পিড়িতে বসে যাওয়াকে কেউ খারাপ বলতে পারবে না। তবে সংসারের সেই দায়িত্বভার সামলে নিজেকে কতটা শোবিজ অঙ্গনে মেলে ধরতে পারবেন, সেটাও লক্ষনীয়।

অল্প বয়সে বিয়ে করেছিলেন স্পর্শিয়া, সোহানা সাবা, তাসনুভা তিশা, নাদিয়া আফরিন মিম, নোভারা। পিয়া বিপাশা তো রীতিমতো বাড়ি থেকে পালিয়ে বিয়ে করেন। মেয়ে সন্তানের জন্ম হলেও খুব বেশিদিন টেকেনি সংসার। পিয়ার তখন বয়স ১৮ কিংবা ২০। ক্যারিয়ারের কথা না ভেবে হুট করে বিয়ের পিড়িতে বসেন। কিন্তু সংসার সুখের করতে পারেননি। প্রায় সবারই একই কারণ বোঝাপরার অভাব। এই অভাব হয়তো ত্রিশ বছরের পরেও হতে পারে। তবে মিডিয়ায় যখন কেউ স্ট্রাগল করে, তখনই বিয়ের পিড়িতে বসলে সমস্যা চলে আসে। তবে সমস্যাকে তুড়ি মারতে হবে নিজেদেরকেই।

বিয়ের সঠিক বয়স কোনটি তা নিয়ে বিভিন্ন মত রয়েছে। অনেকে বলেন- বিয়ে এবং সম্পর্ক আসলে কী তা বুঝে তবেই বিয়ের সিদ্ধান্ত নেয়া উচিত। আর বিয়ের সাথে অর্থনৈতিক বিষয়ও জড়িত থাকে বলে অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী না হওয়া পর্যন্ত অনেকেই বিয়ের কথা ভাবেন না। কিন্তু সত্যি বলতে কি, দ্রুত বিয়ে করে ফেলার সিদ্ধান্ত কিন্তু বুদ্ধিমানের মতো কাজ। বয়স একটু কম থাকতেই বিয়ের সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলা উচিত। এতে জীবনটা অনেক বেশিই সহজ মনে হবে আপনার কাছে। অনেক ধরণের সমস্যা থেকে অনায়াসে মুক্ত থাকারও সম্ভাবনা রয়েছে।

দুর্ভাগ্যবশত অনেকেই বিয়ের ক্ষেত্রে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারেন না। তাই এখন ডিভোর্সের সংখ্যাও বাড়ছে। জলদি বিয়ে করার কিন্তু এই দিক থেকেও সুবিধা রয়েছে। যদি অল্প বয়সে বিয়ে করার পর, কোন কারণে সংসার ভেঙ্গে যায়, তারপরও জীবনটাকে নতুন করে গুছিয়ে নেয়ার দ্বিতীয় সুযোগ পাওয়া যায়।

আজকের নাটোর
আজকের নাটোর
এই বিভাগের আরো খবর